৭৭টি বিজ্ঞানের ছোট প্রশ্ন ও উত্তর

৭৭টি বিজ্ঞানের ছোট প্রশ্ন ও উত্তর

ইলেকট্রন আবিষ্কার করেন থমসন।
প্রোটন আবিষ্কার করেন রাদারফোর্ড।
নিউটন আবিষ্কার করেন স্যাডউইক।
এটম বোমা তৈরি হয় ফিশন প্রক্রিয়ায়।
পারমাণবিক বোমার আবিষ্কার করেন ওপেন হাইমার।
ব্ল্যাক বক্স যন্ত্র ব্যবহৃত হয় বিমানে।
নাইট্রোজেনের পারমানবিক সংখ্যা
সিলিকনের পারমাণবিক সংখ্যা ১৪
ইউরেনিয়ামের পারমাণবিক সংখ্যা ৯২
আর্সেনিকের পারমাণবিক সংখ্যা ৩৩
কমলা লেবুতে থাকে এসকরবিক এসিড।
পলিথিন পোড়ালে উৎপন্ন হয় কার্বনমনোক্সাইড।
ইউরিয়া সার উৎপাদন করার কাঁচামাল প্রাকৃতিক গ্যাস।
প্রাকৃতিক গ্যাসের প্রধান উপাদান মিথেন।
বায়োগ্যাসের প্রধান উপাদান মিথেন।
সেভিং সাবানের উপাদান কস্টিক পটাশ।
কাঁদুনে গ্যাসের অপর নাম ক্লোরোপিকরিন।
নাইট্রোজেন গ্যাস থেকে প্রস্তুত হয় ইউরিয়া।
কাঁচ তৈরির প্রধান উপাদান সিলিকা বা বালি।
প্রাকৃতিক বস্তুর মধ্যে সবচেয়ে শক্ত পদার্থ হীরক।
সর্বাপেক্ষা হালকা ধাতু লিথিয়াম।
সর্বোত্তম তড়িৎ বাহক তামা (Cu)
তামা ও টিনের মিশ্রণে তৈরি হয় ব্রোঞ্জ।
সবচেয়ে মূল্যবান ধাতু প্লাটিনাম।
জলাতঙ্কের টিকা আবিষ্কার করেন লুই প্রাস্তুর।
পোলিও টিকার আবিষ্কারক জোনাস সক।
যক্ষ্মা রোগের জীবাণু আবিষ্কার করেন রর্বাট কচ।
পেনিসিলিন আবিষ্কার করেন আলেকজান্ডার ফ্লেমিং।
ওজোন এর রং গাঢ় নীল।
সাবানের রাসায়নিক নাম সোডিয়াম স্টিয়ারেট।
ওজোন স্তরের সর্বাপেক্ষা ক্ষতিকর গ্যাস ক্লোরিন।
ভূ-ত্বকে সবচেয়ে বেশী পাওয়া যায় অ্যালুমিনিয়াম (৭%)
পৃথিবীর সবচেয়ে মূল্যবান ধাতু ক্যালিফোর্নিয়াম।
রক্তের সার্বজনীন গ্রহীতা “AB” গ্রুপ।
রক্তের সার্বজনীন দাতা “O” গ্রুপ।
রেল ইঞ্জিনের অাবিষ্কারক স্টিফেনসন।
শিশুদের চিকিৎসা বিদ্যাকে বলে পেডিয়াট্রিক্স।
ভ্রুণ সম্পর্কিত বিদ্যাকে বলে এমব্রায়োলজি।
অনুজীব বিষয়ক বিদ্যাকে বলে মাইক্রোবায়োলজি।
প্রত্নতত্ত্ব বিদ্যাকে বলে অার্কিওলজি।
উভচর ও সরীসৃপ বিষয়ক বিদ্যাকে বলে হারপেটোলজি।
সালোকসংশ্লেষণ সবচেয়ে বেশি হয় লাল আলোতে।
গাজরের মূলে থাকে ক্যারোটিন।
লেট ব্লাইট রোগটি সম্পর্কিত আলুর সাথে।
বিশ্বের প্রথম টেস্টটিউব বেবীর নাম লুইস ব্রাউন।
মানবদেহে করোটিতে অস্থির সংখ্যা ২৯ টি।
মানবদেহে কশেরুকার সংখ্যা ৩৩ টি।
মানবদেহের বৃহত্তম কোষ ডিম্বানু।
মানুষের সবচেয়ে বড় হাড় ফিমার।
মানুষের সবচেয়ে বড় গ্রন্থি যকৃত।
রক্ত আমাশয়ের জীবাণু সিগেলা।
চা পাতায় পাওয়া যায় ভিটামিন বি কমপ্লেক্স।
কচু খেলে গলা চুলকায় কারন কচুতে রয়েছে ক্যালসিয়াম অক্সালেট
ভিটামিন সি এর অপর নাম এসকরবিক এসিড।
রেফ্রিজারেটরে ব্যবহৃত হয় কার্বন ও ফ্রেয়ন।
বাদুড় পথ চলার জন্য ব্যবহার করে আল্ট্রাসনিক তরঙ্গ।
পলিথিন মাটির সাথে মিশতে সময় লাগে প্রায় ৪৫০ বছর।
কাচ মাটির সাথে মিশতে সময় লাগে প্রায় ২০০ বছর।
শব্দের গতি সবচেয়ে কম বায়বীয় পদার্থে।
সূর্য থেকে পৃথিবীর দূরত্ব ১৫ কোটি কিমি।
লেজার রশ্মি আবিষ্কার করেন মাইম্যান।
আলোর কোয়ান্টাম তত্ত্বের প্রবক্তা ম্যাক্স প্ল্যাঙ্ক।
লেন্সের ক্ষমতার একক ডায়প্টার।
হীরক দেখার কারন পূর্ণ অভ্যন্তরীণ প্রতিফলনের জন্য।
যে মসৃণ তলে আলোর নিয়মিত প্রতিফলন ঘটে তাকে বলে দর্পন।
সিনেমাস্কোপ প্রজেক্টরে ব্যবহৃত হয় অবতল লেন্স।
আকাশে রংধনু সৃষ্টির কারণ বৃষ্টির কণা।
আলোর বিচ্যুতি সবচেয়ে বেশি বেগুনি রঙ্গের।
আলোর বিচ্যুতি সবচেয়ে কম লাল রঙ্গের।
লাল আলোতে নীল রঙ্গের ফুল দেখাবে কালো।
চা তাড়াতাড়ি ঠান্ডা হয় কালো রঙ্গের কাপে।
বিদ্যুৎ পরিবাহিতা সবচেয়ে বেশি রুপার।
লোহার উপর টিনের প্রলেপ দেয়াকে বলে গ্যালভানাইজিং।
বৈদ্যুতিক বাল্বের ভিতরে সরু তারটি তৈরি হয় টাংস্টেন দ্বারা।
বৈদ্যুতিক ইস্ত্রি ও হিটারে ব্যবহৃত হয় নাইক্রোম তার।
ট্রানজিস্টার আবিষ্কার হয় ১৯৪৮ সালে।
এক্সরে আবিষ্কার করেন রন্টজেন।

1 thought on “৭৭টি বিজ্ঞানের ছোট প্রশ্ন ও উত্তর”

Leave a Comment

Your email address will not be published.

error: Alert: Content is protected !!