প্রশ্নোত্তরে ভারতের সম্পদ

প্রশ্নোত্তরে ভারতের সম্পদ

১. সম্পদ কাকে বলে?
উত্তর : মানুষের ব্যক্তিগত অথবা সামাজিক চাহিদা পূরনের উদ্দেশ্যে বিশেষ স্থানে বা কালে বস্তু বা অবস্তু যে কার্য সম্পাদন করে,তাকে সম্পদ বলে।
২. সম্পদ সৃষ্টির প্রধান উপাদানগুলি কি কি?
উত্তর : প্রকৃতি, মানুষ ও সংস্কৃতি।
৩. কোন বস্তুর কাজ করার ক্ষমতাকে কি বলা হয়?
উত্তর : কার্যকারিতা।
৪. কোন বস্তু বা অবস্তুর মানুষের চাহিদা পূরণ করার ক্ষমতাকে কি বলে?
উত্তর : উপযোগিতা।
৫. একজন বিখ্যাত সম্পদ সমীক্ষকের নাম লেখ?
উত্তর : ই. ডব্লুউ জিমারম্যান।
৬. “World Resources and Industries” গ্রন্থটি কার লেখা?
উত্তর : জিমারম্যান।
৭. সম্পদের দুটি প্রধান বৈশিষ্ট্য কি কি?
উত্তর : কার্যকারিতা ও উপযোগিতা।
৮. বসুন্ধরা সম্মেলন কবে কোথায় অনুষ্ঠিত হয়?
উত্তর : 1992 খ্রীঃ, ব্রাজিলের রিওডিজেনিরো শহরে।
৯. যে সমস্ত বস্তু বা পদার্থ মানুষের কোন উপকারও করে না এবং অপকারও করেনা, তাদের কি বলে?
উত্তর : নিরপেক্ষ উপাদান।
১০. অ্যান্টার্কটিকার ভূগর্ভে সঞ্চিত খনিজ পদার্থ কিসের উদাহরণ?
উত্তর : নিরপেক্ষ উপাদান।
১১. সম্পদ সৃষ্টির অনুসারে সম্পদকে কয় ভাগে ভাগ করা হয় ও কি কি?
উত্তর : তিন ভাগে; যথা-প্রাকৃতিক সম্পদ মানবিক সম্পদ ও সাংস্কৃতিক সম্পদ।
১২. কয়েকটি প্রাকৃতিক সম্পদের নাম লেখ।
উত্তর : সূর্যরশ্মি, খনিজ পদার্থ, জল, বনভূমি, মৎস্য ইত্যাদি।
১৩. কয়েকটি মানবিক সম্পদের নাম লেখ।
উত্তর : শ্রমিকের কর্মদক্ষতা, মানুষের উদ্ভাবনী ক্ষমতা।
১৪. কোন দেশের জনসংখ্যা বা মানুষ কী ধরনের সম্পদ?
উত্তর : মানবিক সম্পদ।
১৫. মানুষের জ্ঞান বুদ্ধি, শিক্ষা দীক্ষা, বিজ্ঞান চেতনা, প্রকৌশল-এগুলি কি ধরনের সম্পদ?
উত্তর : সাংস্কৃতিক সম্পদ।
১৬. সম্পদের জৈবিক বৈশিষ্ট্য অনুসারে সম্পদকে কয় ভাগে ভাগ করা হয় ও কি কি?
উত্তর : দুই ভাগে; যথা-জৈব সম্পদ ও অজৈব সম্পদ।
১৭. কয়েকটি জৈব সম্পদের নাম লেখ।
উত্তর : দুগ্ধ, পশম, মৎস্য ইত্যাদি।
১৮. কয়েকটি অজৈব সম্পদের নাম লেখ?
উত্তর : লৌহ আকরিক, জল ইত্যাদি।
১৯. সম্পদের মালিকানা অনুসারে সম্পদকে কয় ভাগে ভাগ করা হয় ও কি কি?
উত্তর : চার ভাগে; যথা-ব্যক্তিগত সম্পদ, সামাজিক সম্পদ, জাতীয় সম্পদ, আন্তর্জাতিক সম্পদ।
২০. বিদ্যালয়, পাঠাগার, হাসপাতাল-এগুলি কি ধরনের সম্পদ?
উত্তর : সামাজিক সম্পদ।
২১. কোন দেশের নদ-নদী কী ধরনের সম্পদ?
উত্তর : জাতীয় সম্পদ।
২২. বায়ুমণ্ডল ও মহাসাগর কি ধরনের সম্পদ?
উত্তর : আন্তর্জাতিক সম্পদ।
২৩. সম্পদের বন্টন বা অবস্থান অনুসারে সম্পদকে কয় ভাগে ভাগ করা হয় ও কি কি?
উত্তর : চার ভাগে; যথা-সর্বত্র প্রাপ্তব্য সম্পদ, সহজলভ্য সম্পদ, দুষ্প্রাপ্য সম্পদ, অদ্বিতীয় সম্পদ।
২৪. সূর্যালোক ও বায়ুপ্রবাহ কি ধরনের সম্পদ?
উত্তর : সর্বত্র প্রাপ্তব্য সম্পদ।
২৫. মালয়েশিয়ার টিন ও ভারতের অভ্র কী ধরনের সম্পদ?
উত্তর : দুষ্প্রাপ্য সম্পদ।
২৬. একটি অদ্বিতীয় সম্পদের নাম লেখ?
উত্তর : গ্রীণল্যান্ডের ক্রায়োলাইট।
২৭. কয়েকটি সহজ লভ্য সম্পদের নাম লেখ।
উত্তর : কৃষিজমি, বনভূমি, মৃত্তিকা ইত্যাদি।
২৮. কয়েকটি বস্তুগত সম্পদের নাম লেখ।
উত্তর : কয়লা, লৌহ আকরিক, ঘরবাড়ি ইত্যাদি।
২৯. কয়েকটি অবস্তুগত সম্পদের নাম লেখ।
উত্তর : শিক্ষা, জ্ঞান বুদ্ধি, উদ্ভাবনী ক্ষমতা ইত্যাদি।
৩০. কেনিয়া ও কঙ্গোর সম্ভাব্য জলবিদ্যুৎ কি ধরনের সম্পদ?
উত্তর : সম্ভাব্য সম্পদ।
৩১. দুটি বিকশিত সম্পদের নাম লেখ।
উত্তর : আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের জলবিদ্যুৎ, ভারতের তাপবিদ্যুৎ।
৩২. যে সমস্ত সম্পদ বারবার ব্যবহার করার ফলে নিঃশেষিত যায়, তাদের কি ধরনের সম্পদ বলা হয়?
উত্তর : অপুনর্ভব বা ক্ষয়িষ্ণু সম্পদ।
৩৩. কয়েকটি অপুনর্ভব বা ক্ষয়িষ্ণু সম্পদের নাম লেখ।
উত্তর : কয়লা, খনিজ তেল, লৌহ আকরিক ইত্যাদি খনিজ সম্পদ।
৩৪. যে সমস্ত সম্পদ পর্যাপ্ত পরিমাণে ব্যবহার করার পরেও ফুরিয়ে যাওয়ার কোন সম্ভাবনা নেই, তাদের কি ধরনের সম্পদ বলা হয়?
উত্তর : অবাধ সম্পদ বা প্রবাহমান সম্পদ।
৩৫. কয়েকটি অবাধ সম্পদ বা প্রবাহমান সম্পদের নাম লেখ।
উত্তর : সূর্যকিরণ, বায়ুপ্রবাহ, জলস্রোত থেকে উৎপন্ন জলবিদ্যুৎ ইত্যাদি।
৩৬. যেসব সম্পদের যোগান সীমিত এবং বারবার ব্যবহারের ফলে সাময়িকভাবে হ্রাস পায়, কিন্তু নির্দিষ্ট সময় পর পুনরায় যোগান বৃদ্ধি পায় ও ক্ষয় পূরণ হয়ে যায়; তাদের কি ধরনের সম্পদ বলা হয়?
উত্তর : পুনর্ভব সম্পদ বা পূরনশীল সম্পদ বা অক্ষয়িষ্ণু সম্পদ।
৩৭. কয়েকটি পুনর্ভব সম্পদের নাম লেখ।
উত্তর : বনভূমি, মাটির উর্বরতা, মৎস্য ক্ষেত্রের মাছ ইত্যাদি।
৩৮. যে সমস্ত পুনর্ভব সম্পদ অতিরিক্ত ব্যবহারের ফলে একসময় নিঃশেষিত হয়ে অপুনর্ভব সম্পদে পরিণত হয়, তাকে কি ধরনের সম্পদ বলা হয়?
উত্তর : রুদ্ধ প্রবাহমান সম্পদ।
৩৯. যে সমস্ত অপুনর্ভব সম্পদকে সুষ্ঠ ব্যবহারের মাধ্যমে দীর্ঘদিন ধরে ব্যবহার করা যায়, তাদের কি ধরনের সম্পদ বলা হয়?
উত্তর : আবর্তনীয় গচ্ছিত সম্পদ।
৪০. ছাঁট লোহা বা স্ক্রাপ লোহা কী ধরনের সম্পদ?
উত্তর : আবর্তনীয় গচ্ছিত সম্পদ।
৪১. সম্পদ সৃষ্টিতে মানুষ কি ধরনের ভূমিকা গ্রহণ করে?
উত্তর : দ্বৈত ভূমিকা।
৪২. খনিজ দ্রব্য কাকে বলে?
উত্তর : ভূপৃষ্ঠের উপর ও নীচ থেকে বিভিন্ন রাসায়নিক প্রক্রিয়ায় উৎপন্ন এবং প্রায় একই উপাদানে গঠিত যেসব দ্রব্য আহরণ করা হয়, তাদের খনিজ দ্রব্য বলে।
৪৩. লৌহ আকরিক কি ধরনের সম্পদ?
উত্তর : লৌহ আকরিক অপুনর্ভব, ক্ষয়িষ্ণু, গচ্ছিত ধাতব খনিজ সম্পদ।
৪৪. আকরিক লোহা কাকে বলে?
উত্তর : প্রকৃতির মধ্যে বিভিন্ন ধরনের অবাঞ্চিত পদার্থ মিশ্রিত অবস্থায় যে লোহা অবস্থান করে, তাকে আকরিক লোহা বলে।
৪৫. লোহার সঙ্গে কোন কোন ধাতু মিশিয়ে ইস্পাত তৈরি করা হয়?
উত্তর : ম্যাঙ্গানিজ, নিকেল, ক্রোমিয়াম ইত্যাদি।
৪৬. ব্লাস্ট ফার্নেসে লৌহ আকরিক গলিয়ে পরিস্রুত লোহা বা পিগ আয়রন প্রস্তুতির সময় কোন কোন খনিজ পদার্থ মেশানো হয়?
উত্তর : চুনাপাথর ও ডলোমাইট।
৪৭. আকরিক লোহাকে কয় ভাগে ভাগ করা হয় এবং কি কি?
উত্তর : আকরিকের মধ্যে লোহার পরিমাণ অনুসারে কে চার ভাগে ভাগ করা হয়। যথা-ম্যাগনেটাইট, হেমাটাইট, লিমোনাইট ও সিডেরাইট।
৪৮. সর্বাপেক্ষা উৎকৃষ্ট মানের লৌহ আকরিকের নাম কি?
উত্তর : ম্যাগনেটাইট।
৪৯. ম্যাগনেটাইট লৌহ আকরিক লোহার পরিমাণ কত থাকে?
উত্তর : 70%-72%
৫০. হেমাটাইট লৌহ আকরিক লোহার পরিমাণ কত থাকে?
উত্তর : 70% বা তার কম।
৫১. লিমোনাইট লৌহ আকরিক লোহার পরিমাণ কত থাকে?
উত্তর : প্রায় 60%
৫২. সিডেরাইট লৌহ আকরিক লোহার পরিমাণ কত থাকে?
উত্তর : প্রায় 48%।
৫৩. ভারতের অধিকাংশ লৌহ আকরিক কি ধরনের?
উত্তর : হেমাটাইট।
৫৪. লৌহ আকরিক উৎপাদনে বর্তমানে ভারতের কোন রাজ্য প্রথম স্থান অধিকার করেছে?
উত্তর : ওড়িশা।
৫৫. লৌহ আকরিক উৎপাদনে বর্তমানে ভারতের কোন রাজ্য দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছে
উত্তর : ছত্রিশগড়।
৫৬. লৌহ আকরিক উৎপাদনে বর্তমানে ভারতের কোন রাজ্য তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে
উত্তর : ঝাড়খন্ড।
৫৭. উড়িষ্যার গুরুমহিষানি ও বাদাম পাহাড় কোন খনিজ পদার্থ উত্তোলনের জন্য বিখ্যাত?
উত্তর : লৌহ আকরিক।
৫৮. বায়লাডিলা ও দাল্লিরাজহারা লৌহ খনি কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : ছত্রিশগড়।
৫৯. ভারত কোন কোন দেশে লৌহ আকরিক রপ্তানি করে?
উত্তর : চীন, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, ইতালি ইরান, পোল্যান্ড হাঙ্গেরি ইত্যাদি।
৬০. কয়লা কি ধরনের সম্পদ?
উত্তর : গচ্ছিত, অপুনর্ভব ও ক্ষয়িষ্ণু শক্তি সম্পদ।
৬১. কি ধরনের শিলাস্তরে উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়?
উত্তর : পাললিক শিলাস্তর।
৬২. কয়লাকে কয় ভাগে ভাগ করা হয় ও কি কি?
উত্তর : কার্বনের পরিমাণ অনুসারে কয়লাকে চার ভাগে ভাগ করা হয়। যথা-অ্যানথ্রাসাইট, বিটুমিনাস, লিগনাইট ও পিট।
৬৩. সর্বাপেক্ষা উৎকৃষ্ট মানের কয়লার নাম কি?
উত্তর : অ্যানথ্রাসাইট।
৬৪. অ্যানথ্রাসাইট কয়লায় কার্বনের পরিমাণ কত?
উত্তর : প্রায় 90%।
৬৫. . বিটুমিনাস কয়লায় কার্বনের পরিমাণ কত?
উত্তর : প্রায় 50%-85%।
৬৬. . লিগনাইট কয়লায় কার্বনের পরিমাণ কত?
উত্তর : প্রায় 35%-50%।
৬৭. . পিট কয়লায় কার্বনের পরিমাণ কত?
উত্তর : 35% এর কম।
৬৮. কোন শ্রেণীর কয়লাকে বাদামি কয়লা বলা হয় ?
উত্তর : লিগনাইট।
৬৯. সর্বাপেক্ষা নিকৃষ্ট মানের কয়লার নাম কি?
উত্তর : পিট কয়লা।
৭০. কয়লা সৃষ্টির প্রাথমিক পর্যায়ে কোন কয়লা সৃষ্টি হয়?
উত্তর : পিট কয়লা।
৭১. কয়লায় কার্বন ছাড়া আর কোন কোন পদার্থ মিশ্রিত থাকে?
উত্তর : অক্সিজেন, নাইট্রোজেন, হাইড্রোজেন, ফসফরাস, বেঞ্জিন, সালফার ইত্যাদি।
৭২. কালো হিরে কাকে বলা হয়?
উত্তর : কয়লা।
৭৪. কয়লার কয়েকটি উপজাত দ্রব্যের নাম লেখ।
উত্তর : আলকাতরা, ক্রিয়োজোট, ন্যাপথালিন, স্যাকারিন, ফেনল, বেঞ্জল, অ্যামোনিয়া ইত্যাদি।
৭৫. কীটনাশক ওষুধ তৈরিতে কয়লার কোন উপজাত দ্রব্য হয়?
উত্তর : ক্রিয়োজোট, ন্যাপথালিন ও ফেনল।
৭৬. কয়লার কোন উপজাত দ্রব্য চিনির বিকল্প হিসেবে ব্যবহৃত হয়?
উত্তর : স্যাকারিন।
৭৭. ভারতের অধিকাংশ কয়লা কোন শ্রেণীর?
উত্তর : বিটুমিনাস।
৭৮. ভারতে উৎপাদিত মোট বিদ্যুতের কত শতাংশ কয়লা পুড়িয়ে উৎপাদন করা হয়?
উত্তর : প্রায় 75%।
৭৯. ভারতের কোথায় প্রথম কয়লা খনি আবিষ্কৃত হয়?
উত্তর : পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার রানীগঞ্জ।
৮০. কয়লা উত্তোলনে কোন রাজ্য ভারতে প্রথম স্থান অধিকার করেছে?
উত্তর : ছত্রিশগড়।
৮১. কয়লা উত্তোলনে কোন রাজ্য ভারতে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছে?
উত্তর : ঝাড়খন্ড
৮২. কয়লা উত্তোলনে কোন রাজ্য ভারতে তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে?
উত্তর : ওড়িশা
৮৩. ভারতের বৃহত্তম কয়লা খনি অঞ্চলের নাম কি?
উত্তর : ঝড়িয়া।
৮৪. ভারতের বৃহত্তম লৌহখনির খনির নাম কি?
উত্তর : বড়োজামদা।
৮৫. পৃথিবীর একক বৃহত্তম লৌহ খনির নাম কী?
উত্তর : চিরিয়া‌
৮৬. ভারতের প্রাচীনতম কয়লা খনি কোথায় অবস্থিত?
উত্তর : রানীগঞ্জ।
৮৭. পশ্চিমবঙ্গের বৃহত্তম কয়লা খনি কোথায় অবস্থিত?
উত্তর : রাণাগঞ্জ।
৮৮. ভারতের বৃহত্তম লিগনাইট কয়লা খনিটি কোথায় অবস্থিত?
উত্তর : তামিলনাড়ুর নিভেলী।
৮৯. ভারতের কোন রাজ্যে উৎকৃষ্ট মানের অ্যানথ্রাসাইট কয়লা পাওয়া যায়?
উত্তর : জম্মু ও কাশ্মীর।
৯০. কোরবা কয়লা খনি কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : ছত্রিশগড়।
৯১. তালচের কয়লা খনি কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : ওড়িশা।
৯২. ঝড়িয়া, বোকারো, গিরিডি ও ডালটনগঞ্জ কয়লা খনি কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : ঝাড়খন্ড।
৯৩. পশ্চিমবঙ্গের কোন কোন স্থানে কয়লা পাওয়া যায়?
উত্তর : রানীগঞ্জ, মেজিয়া, আসানসোল, অন্ডাল, দিশেরগড়, সালতোড়, বড়জোড়া ইত্যাদি।
৯৪. পশ্চিমবঙ্গের কোথায় টার্শিয়ারি যুগের কয়লা পাওয়া যায়?
উত্তর : দার্জিলিং জেলার বাগড়াকোট ও তিনধারিয়া এবং কালিম্পং।
৯৫. নামচিক-নামফুক কয়লা খনি কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : অরুণাচল প্রদেশ।
৯৬. বোরজান ও তিয়েনসাং কয়লা খনি কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : নাগাল্যান্ড।
৯৭. খনিজ তেল কী ধরনের সম্পদ?
উত্তর : গচ্ছিত, অপুনর্ভব ও ক্ষয়িষ্ণু খনিজ সম্পদ।
৯৮. অপরিশোধিত খনিজ তেলকে কী বলা হয়?
উত্তর : ক্রুড অয়েল।
৯৯. কী ধরনের শিলাস্তরে খনিজ তেল অবস্থান করে?
উত্তর : পাললিক শিলাস্তর।
১০০. খনিজ তেলের কয়েকটি উপজাত দ্রব্যের নাম লেখ।
উত্তর : কেরোসিন, পেট্রোল, ডিজেল, লুব্রিকেটিং অয়েল, পিচ, ভেসলিন, প্যারাফিন, ন্যাপথা ইত্যাদি।
১০১. তরল সোনা কাকে বলা হয়?
উত্তর : খনিজ তেল।
১০২. ভারতের প্রাচীনতম খনিজ তেল উৎপাদন কেন্দ্রের নাম কি?
উত্তর : অসমের ডিগবয়।
১০৩. আঙ্কেলেশ্বর তৈলখনি কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : গুজরাট।
১০৪. আলিয়াবেত তৈলখনি কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : গুজরাট।
১০৫. মঙ্গলা তৈলক্ষেত্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : রাজস্থান।
১০৬. ভারতের বৃহত্তম তৈল উৎপাদক অঞ্চলের নাম কি?
উত্তর : মুম্বাই দরিয়া বা মুম্বাই হাই অঞ্চল।
১০৭. মুম্বাই দরিয়া বা মুম্বাই হাই অঞ্চলের কয়েকটি খনিজ তেল উত্তোলন কেন্দ্রের নাম লেখ।
উত্তর : হিরা, পান্না, রত্না,গান্ধার, থুজা, নীলম ইত্যাদি।
১০৮. মুম্বাই দরিয়া বা মুম্বাই হাই অঞ্চলে কবে প্রথম খনিজ তেল উত্তোলন শুরু হয়?
উত্তর : 1974 খ্রীঃ।
১০৯. সাগর সম্রাট ও সাগর বিকাশ কী?
উত্তর : সাগর সম্রাট ও সাগর বিকাশ হলো মুম্বাই হাই বা মুম্বাই দরিয়া অঞ্চলে আরব সাগরের বুকে ভাসমান তৈল উত্তোলনকারী প্ল্যাটফর্ম।
১১০. ভারতের কোন রাজ্য খনিজ তেল উত্তোলনে প্রথম স্থান অধিকার করেছে?
উত্তর : মহারাষ্ট্র।
১১১. ভারতের কোন রাজ্য খনিজ তেল উত্তোলনে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছে
উত্তর : রাজস্থান।
১১২. ভারতে প্রতিবছর উত্তোলিত খনিজ তেল দিয়ে দেশের মোট চাহিদার কত শতাংশ পূরণ করা যায়?
উত্তর : 30 শতাংশ।
১১৩. ভারত কোন কোন দেশ থেকে খনিজ তেল আমদানি করে?
উত্তর : সৌদি আরব, রাশিয়া, ইরাক,ইরান, নাইজেরিয়া, সংযুক্ত আরব আমিরাহী, ভেনেজুয়েলা, কুয়েত ইত্যাদি।
১১৪. বর্তমানে ভারতে মোট কতগুলি খনিজ তেল শোধনাগার আছে?
উত্তর : ২১টি।
১১৫. ভারতের বৃহত্তম খনিজ তেল শোধনাগার কোথায় অবস্থিত?
উত্তর : গুজরাটের জামনগর।
১১৬. পশ্চিমবঙ্গের কোথায় খনিজ তেল শোধনাগার আছে?
উত্তর : পূর্ব মেদিনীপুর জেলার হলদিয়া।
১১৭. বঙ্গাইগাঁও খনিজ তৈল শোধনাগার কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : অসম।
১১৮. বিশাখাপত্তনম খনিজ তেল শোধনাগার কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : অন্ধ্রপ্রদেশ।
১১৯. নুমালিগড় খনিজ তেল শোধনাগার কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : অসম।
১২০. ভারতের কোন রাজ্য খনিজ তেল উত্তোলনে তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে?
উত্তর : গুজরাট।
১২১. ভারতের প্রচলিত শক্তি সম্পদের নাম লেখ।
উত্তর : তাপবিদ্যুৎ, জলবিদ্যুৎ, পারমাণবিক বিদ্যুৎ ইত্যাদি।
১২২. ভারতের কয়েকটি অপ্রচলিত শক্তি সম্পদের নাম লেখ।
উত্তর : সৌরশক্তি, বায়ু শক্তি, ভূতাপ শক্তি, জোয়ার ভাটা শক্তি, জৈব গ্যাস শক্তি ইত্যাদি।
১২৩. পশ্চিমবঙ্গের তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের নাম লেখ।
উত্তর : কোলাঘাট, ব্যান্ডেল, টিটাগড়, সাঁওতালডিহি, দুর্গাপুর, ফারাক্কা ইত্যাদি।
১২৪. তাপবিদ্যুৎ বলতে কী বোঝো?
উত্তর : কয়লা, খনিজ তেল ও প্রাকৃতিক গ্যাস পুড়িয়ে যে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয়, তাকে সাধারণভাবে তাপবিদ্যুৎ বলে।
১২৫. তাপ বিদ্যুৎ উৎপাদনে বর্তমানে ভারত পৃথিবীতে কততম স্থান অধিকার করেছে?
উত্তর : তৃতীয় স্থান।
১২৬. সিংগ্রাউলি তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : উত্তর প্রদেশ।
১২৭. ওবরা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : উত্তর প্রদেশ।
১২৮. বারমের তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : রাজস্থান।
১২৯. কেইলং তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : হিমাচল প্রদেশ।
১৩০. বারমিনা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : জম্মু ও কাশ্মীর।
১৩১. বদরপুর ও রাজঘাট কোন স্থানে অবস্থিত?
উত্তর : দিল্লি।
১৩২. তাপ বিদ্যুৎ উৎপাদনে বর্তমানে ভারতের কোন রাজ্য প্রথম স্থান অধিকার করেছে?
উত্তর : অন্ধ্রপ্রদেশ।
১৩৩. রামগুন্ডাম ও নেল্লোর তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : অন্ধ্রপ্রদেশ।
১৩৪. জ্যোতি নগর তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : অন্ধ্রপ্রদেশ।
১৩৫. ভারতের বৃহত্তম গ্যাস ভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রটি কোথায় অবস্থিত?
উত্তর : অন্ধ্রপ্রদেশের সামারলাকোটা।
১৩৬. আথিপাট্টু ও কোট্টালাম তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : তামিলনাড়ু।
১৩৭. নেভেলী তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : তামিলনাড়ু।
১৩৮. তাপবিদ্যুৎ উৎপাদনে ভারতের কোন রাজ্যে বর্তমানে ভারতের দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছ?
উত্তর : মহারাষ্ট্র।
১৩৯. উর্জানগর তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : মহারাষ্ট্র।
১৪০. খাপেরখেদা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : মহারাষ্ট্র।
১৪১. ওয়ার্ধা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : মহারাষ্ট্র।
১৪২. খাপেরখেদা ও পারলি তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : মহারাষ্ট্র।
১৪৩. তাপবিদ্যুৎ উৎপাদনে কোন রাজ্য বর্তমানে ভারতে তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে?
উত্তর : তামিলনাড়ু।
১৪৪. বিজয়নগর ও বেল্লারি তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : কর্ণাটক।
১৪৫. ভারতের বৃহত্তম ডিজেল ভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রটি কোথায় অবস্থিত?
উত্তর : কর্ণাটকের এলাহাঙ্কা।
১৪৬. কোঝিকোড় তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : কেরালা।
১৪৭. ব্রম্ভপুরম তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : কেরালা।
১৪৮. কোরবা ও অমরকন্টক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : ছত্রিশগড়।
১৪৯. উকাই, গান্ধীনগর ও ধুবরান তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : গুজরাট।
১৫০. সাতপুরা ও বিন্ধ্যাচল তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : মধ্যপ্রদেশ।
১৫১. ভারতের বৃহত্তম কয়লা ভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রটি কোথায় অবস্থিত?
উমধ্যপ্রদেশের বিন্ধ্যাচলে।
১৫২. জোয়ারিনগর তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : গোয়া।
১৫৩. বোকারো তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : ঝাড়খন্ড।
১৫৪. পাত্রাতু তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : ঝাড়খন্ড।
১৫৫. চন্দ্রপুরা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : ঝাড়খন্ড।
১৫৬. তেনুঘাট তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : ঝাড়খন্ড।
১৫৭. তালচের তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : ওড়িশা।
১৫৮. বারাউনি তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : বিহার।
১৫৯. লাকোয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : অসম।
১৬০. রানিপোল তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : সিকিম।
১৬১. লেইমাথোং তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : সিকিম।
১৬২. জলবিদ্যুৎ কাকে বলে?
উত্তর : নদী, ঝর্ণা, জলপ্রপাত ইত্যাদি প্রবাহমান জলধারার বেগে টারবাইন চাকা ঘুরিয়ে ডায়নামোর সাহায্যে যে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয়, তাকে জলবিদ্যুৎ বলে।
১৬৩. সালাল জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন নদীর উপর অবস্থিত?
উত্তর : জম্মু ও কাশ্মীরের চন্দ্রভাগা বা চেনাব নদী।
১৬৪. নাপথা ঝকরি জল বিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন নদীর উপর অবস্থিত?
উত্তর : হিমাচল প্রদেশে শতদ্রু নদী।
১৬৫. শ্রীশৈলম জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন নদীর ওপর অবস্থিত?
উত্তর : অন্ধ্র প্রদেশের কৃষ্ণা নদীর উপর।
১৬৬. নাগার্জুন সাগর জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন নদীর ওপর অবস্থিত?
উত্তর : অন্ধ্র প্রদেশের কৃষ্ণা নদীর উপর।
১৬৭. সর্দার সরোবর জলবিদ্যুৎ প্রকল্প কোন নদীর উপর অবস্থিত?
উত্তর : গুজরাটের নর্মদা নদী।
১৬৮. হীরাকুঁদ প্রকল্প কোন নদীর উপর অবস্থিত কোথায় অবস্থিত?
উত্তর : উড়িষ্যায় মহানদীর উপর।
১৬৯. শিবসমুদ্রম জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন নদীর উপর অবস্থিত?
উত্তর : কর্নাটকে কাবেরী নদীর উপর।
১৭০. ইদিক্কি কেন্দ্র কোন নদীর উপর অবস্থিত নদী গুলির নাম?
উত্তর : কেরালায় পেরিয়ার নদীর উপর।
১৭১. মেত্তুর জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন নদীর উপর অবস্থিত?
উত্তর : তামিলনাড়ুর কাবেরী নদী।
১৭২. পশ্চিমবঙ্গের কয়েকটি জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রের নাম?
উত্তর : ম্যাসাঞ্জোর, তিস্তা প্রকল্প, জলঢাকা প্রকল্প, ছোটরঙ্গিত, রাম্মাম, সিদ্রাপং, বালাসন ইত্যাদি।
১৭৩. রাম্মাম জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন নদীর উপর অবস্থিত?
উত্তর : পশ্চিমবঙ্গের দার্জিলিং জেলার রাম্মাম নদী।
১৭৪. ভারতের কোথায় প্রথম জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপিত হয়?
উত্তর : দার্জিলিংয়ের সিদ্রাপং।
১৭৫. ভাকরা নাঙ্গাল জলবিদ্যুৎ প্রকল্প কোন নদীর উপর অবস্থিত?
উত্তর : হিমাচল প্রদেশে শতদ্রু নদীর।
১৭৬. তেহেরি কেন্দ্র কোন নদীর উপর অবস্থিত?
উত্তর : উত্তরাখণ্ডে ভাগীরথী নদী।
১৭৭. ইন্দিরা সাগর জলবিদ্যুৎ প্রকল্প কোন নদীর উপর অবস্থিত?
উত্তর : মধ্যপ্রদেশ নর্মদা নদী।
১৭৮. বানসাগর জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন নদীর উপর অবস্থিত?
উত্তর : মধ্যপ্রদেশের শোন নদীর।
১৭৯( পারমাণবিক শক্তি কাকে বলে?
উত্তর : বিভিন্ন তেজস্ক্রিয় পদার্থের পরমাণু মধ্যস্থিত নিউক্লিয়াসের বিভাজন অথবা সংযোজন ঘটিয়ে যে শক্তি উৎপাদন করা হয়, পারমাণবিক শক্তি বলে।
১৮০. পারমাণবিক শক্তি উৎপাদনের প্রধান কাঁচামাল গুলি কি কি?
উত্তর : ইউরেনিয়াম, থোরিয়াম, প্লুটোনিয়াম, পোলোনিয়াম, লিথিয়াম, বোহরিয়াম ইত্যাদি।
১৮১. ভারতের কোথায় ইউরেনিয়াম পাওয়া যায়?
উত্তর : ঝাড়খন্ডের যদুগোড়া।
১৮২. থোরিয়ামের প্রধান আকরিকের নাম কি?
উত্তর : মোনাজাইট বালি।
১৮৩. বর্তমানে ভারতে কতগুলি পারমাণবিক শক্তি উৎপাদন কেন্দ্র আছে?
উত্তর : 7টি।
১৮৪. ভারতের কোথায় প্রথম পারমাণবিক বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র স্থাপিত হয়?
উত্তর : মহারাষ্ট্রের তারাপুর।
১৮৫. রাওয়াভাটা (কোটা. পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : রাজস্থান।
১৮৬. কৈগা পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : কর্ণাটক।
১৮৭. নারোরা পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : উত্তর প্রদেশ।
১৮৮. কাকড়াপাড়া পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : গুজরাট।
১৮৯. কুদানকুলান ও কালপক্কম পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : তামিলনাড়ু।
১৯০. কোন রাজ্যে জইতাপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের কাজ চলছে?
উত্তর : মহারাষ্ট্র।
১৯১. কোন রাজ্যে পুলিভেন্দুলা পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের কাজ চলছে?
উত্তর : অন্ধ্রপ্রদেশ।
১৯২. ভারতেরর বৃহত্তম পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের নাম কি?
উত্তর : তামিলনাড়ুর কুদানকুলান।
১৯৩. ভারতের প্রথম নিউক্লিয়ার রিঅ্যাক্টরের নাম কি?
উত্তর : অপ্সরা।
১৯৪. ভারতের দুটি পারমাণবিক গবেষণা কেন্দ্রের নাম লেখ।
উত্তর : তামিলনাড়ুর কালপক্কমে অবস্থিত ইন্দিরা গান্ধী সেন্টার ফর অ্যাটমিক রিসার্চ’ এবং মহারাষ্ট্রের মুম্বাইয়ে অবস্থিত ভাবা অ্যাটমিক রিসার্চ সেন্টার।
১৯৫. সৌরশক্তি বলতে কী বোঝো?
উত্তর : সূর্য থেকে নির্গত তাপ ও আলো থেকে যে শক্তি উৎপন্ন হয় ,তাকে সৌরশক্তি বলে।
১৯৬. সৌর বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য নির্মিত সৌর কোষের প্রধান উপাদান কি?
উত্তর : সিলিকন।
১৯৭. পৃথিবীর বৃহত্তম সৌর পুষ্করিণী কোথায় অবস্থিত?
উত্তর : গুজরাটের কচ্ছ উপদ্বীপের মাধাপুর।
১৯৮. ভারতের বৃহত্তম বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রটি কোথায় অবস্থিত?
উত্তর : গুজরাটের চারঙ্ক।
১৯৯. ভারতের বৃহত্তম সৌরপার্ক কোথায় অবস্থিত?
উত্তর : গুজরাটের চারঙ্ক।
২০০. কোন দেশ সৌর কুকার ব্যবহারের পৃথিবীতে শীর্ষ স্থান অধিকার করেছে?
উত্তর : ভারত।
২০১. ভারতের কয়েকটি সৌর বিদ্যুৎ কেন্দ্রের নাম লেখ।
উত্তর : উত্তরপ্রদেশের কল্যাণপুর ও মউ, গুজরাটের চারঙ্ক, তামিলনাড়ু শিবগঙ্গা, রাজস্থানের পোখরান ও যোধপুর,ওড়িশার পাটাপুর ইত্যাদি।
২০২. পশ্চিমবঙ্গের কোথায় সৌর বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র আছে?
উত্তর : জামুরিয়া ও সাগরদ্বীপ।
২০৩. বায়ু বিদ্যুৎ উৎপাদনে ভারত পৃথিবীতে কততম স্থান অধিকার করেছে?
উত্তর : পঞ্চম।
২০৪. এশিয়ার বৃহত্তম বায়ু বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি কোথায় অবস্থিত?
উত্তর : গুজরাটের লাম্বা।
২০৫. ভারতের বৃহত্তম বায়ু বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রটি কোথায় অবস্থিত?
উত্তর : গুজরাটের লাম্বা
২০৬. ভারতের কয়েকটি বায়ু বিদ্যুৎ কেন্দ্রের নাম লেখ।
উত্তর : গুজরাটের লাম্বা, তামিলনাড়ুর কন্যাকুমারী ও কায়াথার, কর্নাটকের যোগমাট্টি, কেরলের কোজিকোড, রাজস্থানের জয়সলমির ইত্যাদি।
২০৭. পশ্চিমবঙ্গের দুটি বায়ু বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রের নাম লেখ।
উত্তর : সাগরদ্বীপ ও ফ্রেজারগঞ্জ।
২০৮. ভারতের কয়েকটি ভূতাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের নাম লেখ।
উত্তর : হিমাচল প্রদেশের মণিকরণ, ছত্রিশগড়ের তাতাপানি, উত্তরাখণ্ডের তপোবন, গুজরাটের কাম্বে, লাদাখের পুগা, জম্মু-কাশ্মীরের ছুমাথাং।
২০৯. পশ্চিমবঙ্গের কোথায় ভূতাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র আছে?
উত্তর : বীরভূমের বক্রেশ্বর।
২১০. আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের ইয়েলোস্টোন ন্যাশনাল পার্কের ওল্ড ফেইথফুল কিসের নাম?
উত্তর : গিজার প্রস্রবন।
২১১. বাবাবুদান আকরিক লৌহ খনি কোন রাজ্যে অবস্থিত?
উত্তর : কর্ণাটক।
২১২. ঝাড়খণ্ডের বুদাবুরু কোন খনিজ তেল উত্তোলন কেন্দ্র?
উত্তর : লৌহ আকরিক।
২১৩. কোন শ্রেণীর কয়লা দহনে ধোঁয়াহীন নীলাভ অগ্নিশিখা নির্গত হয়?
উত্তর : অ্যানথ্রাসাইট।
২১৪. ONGC এর সদর দপ্তর কোথায় অবস্থিত?
উত্তর : নিউ দিল্লি।
২১৫. ভারতের তৃতীয় বৃহত্তম তৈল শোধনাগার কোথায় অবস্থিত?
উত্তর : গুজরাটের নায়ারা।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

error: Alert: Content is protected !!